Guest Book

'দ্রাঘিমা' গল্পটি পাওয়া যাবে রেজা ঘটকের 'বুনো বলেশ্বরী' গল্প সংকলনে:
কবর থেকে উঠেই পরান উদ্ভ্রান্তের মতো সোজা মধুবতী বরাবর হাঁটতে থাকে। একে তো অমাবশ্যার রাত, তার উপর অমাবতী। কয়েক দিনের টানা বাদলায় পথঘাটের যাচ্ছে তাই অবস্থা। সবকিছুকে অবজ্ঞা করে পরান হাঁটছে। যতোটা জোরে হাঁটা যায়, প্রাণপণে সেভাবে ঊর্ধ্বশ্বাসে হাঁটে পরান। মরা লোক কারো সঙ্গে কথা বলুক, ওঠবস করুক, আড্ডা মারুক, খাবার খাক, তা জীবিত কেউ আজ পর্যন্ত চায়নি। কেন চায়নি, তা অবশ্য সাংঘাতিক একটা রহস্য। একই মানুষ জীবদ্দশায় আর মরণের পরে কতো পার্থক্য! পরান তাই মনে মনে নিজের আসল পরিচয়টা একটু গোপন রাখার ইচ্ছা পোষণ করল। more...

 

দ্বুশ প্রশাসনের অফিসিয়াল দুষ্কর্মের প্রামান্য দলিল (দ্য নিউ পার্ল হারবার)
ঐতিহাসিক ৯/১১ প্রসঙ্গে ক্লেয়ারমন্ট স্কুল অব থিওলজির প্রফেসর, এমিরেটস এবং সেখানকার সেন্টার ফর প্রসেস স্ট্যাডিজের কো-ডিরেক্টর ডেভিড রে গ্রিফিন দুটো বই লিখেছেন। ‘দ্য নিউ পার্ল হারবার: ডিস্টার্বিং কোয়েশ্চনস অ্যাবাউট দ্য বুশ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড ৯/১১’ (২০০৪) এবং ‘দ্য ৯/১১ কমিশন রিপোর্ট- অমিশনস অ্যান্ড ডিস্টরশনস’ (২০০৫)। ৯/১১ ঘটনার একটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল ‘দ্য নিউ পার্ল হারবার’। নিউ ইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার বিল্ডিং এবং পেন্টাগনে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর-এর হামলার পেছনে নানান রহস্যময় সংযোগ আছে আর সে সবের একটা ধারাবাহিক পর্যালোচনা করতে গিয়ে গ্রিফিন যে বিস্তারিত গবেষণা করেছেন- তা এই বইতে স্থান পেয়েছে। ৯/১১-এর হামলা সম্পর্কে বুশ প্রশাসনের অফিসিয়াল ব্যাখ্যায় যে সমস্ত ফাঁক-ফোকর আছে, সে সবের বিপক্ষে সম্পূর্ণ আবেগ বিবর্জিত অথচ ভারসাম্য রক্ষাকারী এবং গবেষণা ও তথ্য নির্ভর একটি মূল্যবান বই ‘দ্য নিউ পার্ল হারবার’। more...